Published On: মঙ্গল, মে ২, ২০১৭

বিএনপির ১২ জনের বেশি নেতাকে অব্যাহতি

নবসংবাদ ডেস্ক :  এক নেতা এক পদ’ গঠণতন্ত্রের এমন বিধান বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। দীর্ঘদিন থেকেই দলের শতাধিক নেতা কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির একাধিক পদে থাকায় কেন্দ্রীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে একডজন নেতাকে। আরও কয়েক ডজন নেতাও রয়েছেন চলমান এ প্রক্রিয়া।

একই নেতা একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার কারণে দলীয় রাজনীতিতে তৈরি হয় নানামুখী জটিলতা। কেন্দ্রীয় পদে থাকায় তাদের কর্মকাণ্ডের জবাবদিহিতা দিতে হতো না জেলা পর্যায়ে। দলটির নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-কোন্দলের কারণে দলীয় রাজনীতিতে দেখা দিয়েছিল স্থবিরতা। আর এসব বিবেচনা করেই দলের সর্বশেষ জাতীয় কাউন্সিলে আনা হয়েছিল ‘এক নেতা এক পদ’ নীতির প্রস্তাব। কাউন্সিলরদের ভোটে পাসের পর সেটা দলের গঠনতন্ত্রে সংযুক্তও করা হয়।

দলের সিদ্ধান্ত মেনে কাউন্সিলের পরপরই বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, অ্যাডভোকেট আহমদ আজম খান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনসহ অনেকেই জেলা ও অঙ্গদলে থাকা কমিটির পদ ছেড়ে দেন।

কিছু জেলায় সাংগঠনিকভাবে দলের রাজনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে- এটাই ছিল তাদের প্রধান যুক্তি। এমনকি তারা নিজ নিজ জেলার সার্বিক অবস্থা জানিয়ে তার অনুপস্থিতি কি কি ধরনের সমস্যা তৈরি ও ক্ষতির কারণ হতে পারে তা উল্লেখ করে শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে চিঠিও দিয়েছেন।

তাদের একজন দলের যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন বিএনপি মহাসচিবের কাছে চিঠি দিয়ে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত দুই পদে থাকার সুযোগ চেয়েছেন। ওয়ান-ইলেভেনের সময় দলের সংস্কারপন্থি অংশের নেতৃত্ব দেয়া আবদুল মান্নান ভূঁইয়ার জেলা হিসেবে নরসিংদীর নেতৃত্বে কিছুটা নাজুক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। খায়রুল কবীর খোকনের নেতৃত্বে নেতারা ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় এখন হুট করে নেতৃত্ব পরিবর্তন হলে তাদের মধ্যে অনৈক্য দেখা দিতে পারে। স্থানীয় নেতাদের এমন মতামতসহ নানা যুক্তি তুলে ধরে তিনি শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে সময় চেয়ে চিঠি দিয়েছেন।

জানা যায়, দলের চেয়ারপারসনের তার বিশেষ ক্ষমতাবলে কিছু কিছু ক্ষেত্রে নেতাদের সে সুযোগ দিতে পারেন। আবার কিছু নেতা কাউন্সিলের পর তাদের একটি পদ ছেড়ে দেয়ার ঘোষণাসহ চিঠি দিলেও তাদের ব্যাপারে সহসা সিদ্ধান্ত নিতে পারছিল না দল। সর্বশেষ তিন মাসে পুনর্গঠিত ১০টি জেলা কমিটির ১২ জন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে তাদের কেন্দ্রীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

তাদের মধ্যে ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ সম্পাদক পদ থেকে রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, উপজাতীয় বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে বান্দরবান জেলা সভাপতি ম্যামাচিং, রংপুর বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক পদ থেকে নীলফামারীর সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান জামান, সমবায় বিষয়ক সহ-সম্পাদক পদ থেকে নওগাঁ বিএনপি’র সভাপতি নাজমুল হক সনি, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক পদ থেকে কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি সভাপতি শরীফুল আলম, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক পদ থেকে জামালপুরের সাধারণ সম্পাদক ওয়ারেস আলী মামুন, পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে জয়পুরহাট জেলা বিএনপি সভাপতি মোজাহার আলী প্রধান, কর্মসংস্থান বিষয়ক সহ-সম্পাদক পদ থেকে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপি সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ ভূঁইয়া, গ্রাম সরকার বিষয়ক সহ-সম্পাদক পদ থেকে সৈয়দপুর বিএনপি’র সভাপতি আমজাদ হোসেনকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘আপনি নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, গত ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে গৃহীত গঠনতন্ত্রে ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ বিধান অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ সিদ্ধান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে।

বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেন, এক নেতা এক পদ কার্যকরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রথম ধাপে অনেকেই এক পদ থেকে সরে গেছেন। কিছু নেতাকে শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশে চিঠি দেয়া হয়েছে। গঠনতন্ত্রে যুক্ত এই এক নেতা এক পদের বিধিটি ধারাবাহিকভাবে বাস্তবায়ন করা হবে।

দলটির দপ্তর সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ দুই ইউনিট করে ঘোষিত কমিটির শীর্ষ চার নেতার তিনজনই কেন্দ্রীয় পদে রয়েছেন। বিশেষ কারণে তাদের মধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলকে যুগ্ম মহাসচিব পদে রাখার ব্যাপারে শীর্ষ নেতৃত্বের ইতিবাচক।

বিএনপির কেন্দ্রীয় দপ্তর সূত্র জানা যায়, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, খায়রুল কবীর খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, আসাদুল হাবিব দুলু, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াসিন, স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমানসহ অনেকেই জেলা ও কেন্দ্রীয় কমিটির একাধিক পদে রয়েছেন।

আরও খবর

(Visited 1 times, 1 visits today)

Editor : Rahmatullah Bin Habib


55/B, Purana Palton, Dhaka-1000


Email : nobosongbad@gmail.com


copyright @nobosongbad.com


বিএনপির ১২ জনের বেশি নেতাকে অব্যাহতি