Published On: মঙ্গল, মে ২৩, ২০১৭

নরসিংদীতে একই পবিরারের চারজনসহ ৭ জনকে মৃত্যুদন্ড

ইমরান হোসেন, নরসিংদী থেকে : নরসিংদীর পলাশে সামসুল হক নামে এক কৃষক হত্যা মামলায় একই পরিবারের চারজনসহ সাতজনেকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড দেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ শাহীন উদ্দিন এ রায় প্রদান করেন। একই সঙ্গে মৃত্যু হওয়ার আগ পর্যন্ত আসামিদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার কথাও উল্লেখ করেন বিচারক।

দন্ডপ্রাপ্তরা আসামীরা হলেন, পলাশ উপজেলার গালিমপুর গ্রামের মহব্বত আলী মুন্সির ছেলে আব্দুল গাফফার, সিরাজ মিয়ার ছেলে মারফত আলী, মইজ উদ্দিনের ছেলে আলেক মিয়া ও তার স্ত্রী রুপবান, তার ছেলে শরীফ মিয়া ও অপর ছেলে আরিফ মিয়া, মুলুক চাঁনের ছেলে তোতা মিয়া। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা সবাই পলাতক।

সামসুল হকের ছেলে জহিরুল হককে কুপিয়ে গুরুতর জখম করার অপরাধে অপর পাঁচজনকে ৫ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অথদন্ডে দন্ডিত করা হয়। অনাদায়ে আরো ৬ মাসে কারাদন্ডের আদেশ দেন। দন্ডিতরা হলেন, আব্দুল গাফফার, আরিফ মিয়া, আলেক মিয়া, ফারুক মিয়া ও বাছির মিয়া।

অপরদিকে ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট না থাকায় ১৩ জনকে বে-কসুর খালাস দেন আদালত। নিহত সামসুল হক পলাশ উপজেলার গালিমপুর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি একজন কৃষক ছিলেন। মামলার বিবরণী থেকে জানা যায়, জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে নিহত সামসুল হকের সঙ্গে প্রতিবেশী আলেক মিয়া ও গাফফারের দ্বন্দ্ব চলছিল। এ নিয়ে এক অপরের বিরুদ্ধে মামলা-পাল্টা মামলা করেন। এরই জেরে বিভিন্ন সময় মামলার আসামিরা অব্যাহতভাবে নিহত সামসুল হককে দেখে নেয়ার হুমকি দিতেন।

২০০৯ সালের ৩০ আগস্ট রাতে নিহত সামসুল হকের ছেলে জহিরুল ইসলাম বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে আসামি মারফত, শরীফ, আরিফ, জহিরুলকে মারপিট করতে থাকে। তার চিৎকারে বাবা সামসুল হক এগিয়ে যায়। ওই সময় আসামিরা বাবা-ছেলেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। বাবা ও ছেলেকে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিতের পর পাশের একটি গর্তে ফেলে রাখে আসামিরা। খবর পেয়ে নিহতের স্বজন ও আশপাশের লোকজন সামসুলকে মৃত ও জহিরুলকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে। পরে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার সামসুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী নূরজাহান বাদী হয়ে ২০ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করে ঘটনার পর দিন পলাশ থানায় একটি হত্যা মামলা দালে করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দীর্ঘ তদন্ত শেষে উল্লেখিত আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক ও মামলায় সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে অভিযুক্ত সাত আসামির বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সন্দেহাতিত ভাবে প্রমাণিত হওয়ায় সোমবার দুপুরে এ রায় দেন বিচারক।

মামলাটির রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন এম.এএন অলিউল্লাহ ও আসামিপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট শওকত পাঠান।

আরও খবর

(Visited 1 times, 1 visits today)

Editor : Rahmatullah Bin Habib


55/B, Purana Palton, Dhaka-1000


Email : nobosongbad@gmail.com


copyright @nobosongbad.com


নরসিংদীতে একই পবিরারের চারজনসহ ৭ জনকে মৃত্যুদন্ড