Published On: সোম, মে ২৯, ২০১৭

রায়পুরায় দু’গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২ জন নিহত

রায়পুরা (নরসিংদী) প্রতিনিধি : নরসিংদী রায়পুরায় সালিশ বৈঠকে আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২ জন নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। আজ

 সোমবার সকালে উপজেলার চাঁনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আ. কাদির সওদাগর কান্দি গ্রামের মৃত রহিম ধরের ছেলে এবং ভুট্টু মিয়া একই এলাকার মৃত অলফত আলীর ছেলে।

এলাকাবাসীরা জানায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দির্ঘদিন যাবৎ নরসিংদীর নদীবেষ্টিত সীমান্ত এলাকা চানপুর ইউনিয়নের দুর্গম চরাঞ্চল সওদাগর কান্দি গ্রামের আওয়ামী লীগ সমর্থিত আব্দুল্লাবাড়ি ও খান্নাবাড়ির মধ্যে বিরোধ চলে আসছে।প্রায় এক বছর আগে খান্নাবাড়ির সামসু হাজীর ছেলে খোরশেদকে ধরে নিয়ে আব্দুল্লাবাড়ির লোকেরা হাত-পায়ের রগ কেটে কুপিয়ে আহত করে। এতে খোরশেদ প্রাণে বেঁচে গেলেও চিরতরে পঙ্গু হয়ে যায়।

এ ঘটনায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা কবীর মিয়াসহ ২৫ থেকে ৩০ জনকে আসামি করে রায়পুরা থানায় মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলায় রায়পুরা থানা পুলিশ আদালতে চার্জশিটও প্রেরণ করেছেন।

গত কয়েকদিন আগে কুয়েত প্রবাসী লিয়াকত মিয়া দেশে ফিরলে উভয় পক্ষের মধ্যে আপোষ মিমাংসার উদ্যোগ নেয়। সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক আজ সোমবার সকাল ১০টায় সওদাগরকান্দি নদীর পাড়ে মিমাংসার জন্য বসেন উভয় পক্ষ। এরই এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের সমর্থদের মধ্যে বাক-বিতণ্ডা ও টেটাযুদ্ধ বেধে যায়।

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে খান্নাবাড়ির কবীরের নেতৃত্বে ওৎ পেতে থাকা একদল সন্ত্রাসী টেটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সামসু হাজীর লোকদের উপর অতর্কিতে হামলা চালায়।

এতে সামসু হাজীর সমর্থক আ. কাদির বুকে টেটাবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। অপর জন নবীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পর মারা যায়। এ সময় সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে।

পরে আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী ও নবীনগর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজাহারুল ইসলাম সরকার বলেন, এলাকার দুটি গ্রুপ সালিশ দরবারে কথা কাটাকাটি নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়েছে বলে জানতে পেরেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

Editor : Rahmatullah Bin Habib


55/B, Purana Palton, Dhaka-1000


Email : nobosongbad@gmail.com


copyright @nobosongbad.com


রায়পুরায় দু’গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২ জন নিহত