Published On: শুক্র, জানু ৫, ২০১৮

সচিবের বিরুদ্ধে জন্ম সনদে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার অভিযোগ : জনমনে অসন্তুষ

পাড়াতলী ইউনিয়ন পরিষদের সচীব আরিফ সরকার

পাড়াতলী ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের বিরুদ্ধে জন্ম সনদে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার অভিযোগ করেছে ইউনিয়নবাসী

স্টাফ রিপোর্টার :  বর্তমান সরকারের ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়ায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে যাচ্ছে বহুমুখী সেবা ।বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারগুলোতে মিলছে সাশ্রয়ী এ সেবা ।প্রতিদিন শতাধিক মানুষ জনমুখী এ সেবা নিয়ে উপকৃত হচ্ছে ।কিন্তু প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষগুলোর কাছে এ সেবা সাশ্রয়ী হলেও কিছু ইউপি. অফিস সংশ্লিষ্ট কর্তারা হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ ।

রায়পুরা উপজেলার পাড়াতলী ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের বিরুদ্ধে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদানে সরকার  নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত  অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে।দেদারসে সেবার নামে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ায় জনমতে দেখা যাচ্ছে তীব্র অসন্তুষ।তার এ বাণিজ্যে স্থানীয় বাসিন্দা ও সচেতন মহলে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জন্ম নিবন্ধনের জন্য সরকার নির্ধারিত ফি থেকে জানা যায় যে,  জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ দিন পর্যন্ত কোনো ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যুর নিবন্ধন দেশে ও বিদেশে কোনো প্রকার ফি ছাড়াই করতে পারবে আগের মতই।

৪৫ দিন পর থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত জন্ম বা মৃত্যুর নিবন্ধন ফি দেশে ২৫ টাকা এবং জন্ম বা মৃত্যুর পাঁচ বছর পর নিবন্ধন করলে দেশে ৫০ টাকা । কিন্তু পাড়াতুলী ইউপি. সচিব আরিফ কেন সরকার নির্ধারিত ফি সহ অতিরিক্ত ১০০ টাকা জনগনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছেন সেটা আসলে বোধগম্য নয়! তিনি সরকারী কর্মকর্তা তাই তার অতিরিক্ত ফি নেয়ার প্রশ্নই আসেনা।ভোক্তভোগীরা জানান, শুধু জন্মজনদ নয় অন্যান্য সেবার কাজেও তাঁর কাছে গেলে তিনি জনগনের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ  করেন।

ভোক্তভোগী এক কলেজ সাথে কথা বলে জানা গেছে,‘৭ বছরের বাচ্চার জন্য জন্ম নিবন্ধন করতে গেলে তার কাছে সচিব ১৫০ টাকা দাবি করে যার সরকার মুল্য ৫০টাকা। অতিরিক্ত টাকা ছাড়া সচিবের কাছ থেকে কেউ জন্ম নিবন্ধন সনদ পান না’।

ঘটনার আরো সত্যতা জানার তার কাছে ফোন করলে জানা যায়, তিনি ঠিকই একশত টাকা অতিরিক্ত নিচ্ছেন।এটা তিনি জেনেশুনেই নিচ্ছেন । অতিরিক্ত ফি কেন নিচ্ছেন ? জানতে চাওয়া হলে,তিনি ফোন কেটে দেন।

স্থানীয় এলাকাবাসী পাড়াতলী, মধ্যনগর ও কাচারিকান্দি গ্রামের ফারুক,সোহাগ,দুলাল,বাশার সুমনসহ কয়েকজন অভিযোগ করেন, ‘ইউপি সচিব আরিফ সরকারের কাছ থেকে ১৫০-৫০০ টাকায় জন্ম সনদ কিনতে হয়। তিনি নিয়মিত অফিসে আসে না।অথচ তিনি সরকারি ভাতা পাওয়ার পরও অতিরিক্ত লোভের কারনে সাধারন মানুষের কাছ অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেছে।তিনি অফিসে নিয়মিত না আসার কারনে জন্ম সনদ গুরুত্বপূর্ণ সেবা থেকে সাধারন মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে’।সর্বোপরি, সার্ভিস চার্জ একজন উদ্যোক্তা নিতে পারে যেহেতু তারা সরকারের কাছ থেকে কোন বেতন ভাতা পান না । কিন্তু একজন পরিষদের সচিব কিভাবে সরকার নির্ধারিত ফিসহ অতিরিক্ত টাকা নেন তাতে ইউনিয়নবাসী তীব্র অসন্তুষ প্রকাশ করেছে।

এহেন পরিস্থিতিতে বিষয়টির আশু সমাধানের জন্য ইউনিয়নবাসী তথা সাধারন মানুষ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

(Visited 1 times, 1 visits today)

Editor : Rahmatullah Bin Habib


55/B, Purana Palton, Dhaka-1000


Email : nobosongbad@gmail.com


copyright @nobosongbad.com


সচিবের বিরুদ্ধে জন্ম সনদে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার অভিযোগ : জনমনে অসন্তুষ